কুকুর বন্ধুকে গান শোনাল পাখি! (ভিডিও)

Share This
Tags

bird-sings-t

নিউজ ডেস্ক : দৃশ্যটা ভেবে দেখুন। অ্যালসেশিয়ান কিংবা তার চাইতেও বড় সাইজের একটি কুকুর নিবিষ্ট মনে তার বাটি থেকে শুকনো খাবার খাচ্ছে, আর একটি ককাটিল টিয়াপাখি তাকে গান শোনাচ্ছে। সে কি মিষ্টি গান!

ভিডিও দেখে কুকুরটার জাত বাতলে দেওয়ার মতো জ্ঞান আমার নেই। মনে হলো যেন রোডেশিয়ান রিজব্যাক গোছের কোনো বড় শিকারি কুকুর। বাটি থেকে কচর মচর করে ড্রাই ডগ ফুড খাচ্ছে।

তার সামনে যে ল্যাজঝোলা খুদে জীবটি অতি মিষ্টি সুরে শিষ দিয়ে গান গেয়ে চলেছে, সে হলো একটি পাখি, আরও সঠিক করে বলতে হলে, এক জাতের টিয়াপাখি, ইংরেজি নাম ককাটিল।

পাখি আর ধেড়ে কুকুরটি স্পষ্টত একই বাড়ির ও একই মালিকের। এ খানা খাচ্ছে তো ও গানা গাইছে- কিন্তু কেন? শুধু ধেড়ে কুকুরটির মনোরঞ্জনের জন্য? কিন্তু সে তো দেখা যাচ্ছে চরম বেরসিক। অত ভালো গান গাইছে টিয়া বেচারা, তুই খাওয়া বন্ধ রেখে খানিকটা শোন, তা না, একবার মুখ তুলে তাকিয়েই আবার বাটিতে নাক, আবার কচর মচর।

ককাটিল মানে টিয়াপখি কিন্তু তাতে দমে যাবার পাত্র নয়। ‘দুখজাগানিয়া তোমায় গান শোনাব’ বলে সে একটানা গেয়ে যাচ্ছে। অবশ্য কুকুরটা হয়তো সাতসকালে ঘেউ ঘেউ করে ‘ঘুমভাঙানিয়ার’ কাজটাও করে থাকে। সুরটাও ইন্টারেস্টিং, যেন কোনো বাংলা গান- নাকি ইংরেজি? নাকি হিন্দি ফিল্মের গান? স্পষ্টতই শোনা গান, শেখা গান। টিয়া এ গান শিখল কোথায়?

আরো প্রশ্ন উঠতে পারে, টিয়া কুকুরকে গান শুনিয়ে কি পাবার চেষ্টা করছে? এক দানা ডগ ফুড? সে তো টিয়াপাখির খাদ্য নয়। দানোর মতো কুকুর খাওয়া শেষ করে চলে গেল, পাখিও ঘাড় ঘুরিয়ে অন্যদিকে চলে গেল, কিন্তু গান না থামিয়ে! তাহলে?

আমার ব্যাখ্যা হলো, আর পাঁচজন গায়কের মতোই, পাখিটারও শ্রোতার দরকার – কিংবা হয়তো সঙ্গী অথবা সঙ্গিনী? কাছাকাছি আর কোনো টিয়া নেই, তাই ধেড়ে কুকুরটাকে গান শুনিয়ে একাকিত্বের যন্ত্রণা খানিকটা কমিয়ে নিল টিয়াপাখি, বনের পাখি।

আরও বড় কথা, কুকুরটা কিন্তু তার খাবার শেষ না করেই চলে গেছে। সে কি গান অপছন্দ করে? নাকি তারও মনে পড়ে গেল, ‘এ ব্যথা কি যে ব্যথা বোঝে কি অন্যজনে, সজনী আমি বুঝি মরেছি মনে মনে…’

আপনার মন্তব্য লিখুন