বীরগঞ্জে নদীর বুকে চাষাবাদ যেন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পদধ্বনী

Share This
Tags

newsbdn
সিদ্দিক হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি: বীরগঞ্জে ঢেপা নদীর বুকে বোরো ধান ও ভূট্টা চাষ যেন ভবিষ্যতে মারাত্বক প্রাকৃতিক পরিবেশ বিপর্যয়ের পূবাভাষ।
উপজেলার বুকচিরে ঢেপা নদী প্রবাহিত। নদীর কথা ভাবতেই মনে পড়ে ছোট্র বেলার কবিতার কথা আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে বৈশাখ মাসে তার হাটু জল থাকে। কবির এই কাব্য কথার সাথে বর্তমান নদীর চিত্র একেবারেই ভিন্ন। মুলত আষাঢ়-শ্রাবন বর্ষাকাল ২মাস নদীতে জোয়ার থাকে বিগত কয়েক বছর থেকে ঢেপা নদী আগাম শুকিয়ে ওঠায় নদীর বুকে সাফল্যজনক ভাবে বোরো ও ভূট্টা সহ বিভিন্ন ফসলের চাষ করছে কৃষকেরা। নদীর এপার ওপারের কৃষকেরা গত বছর ঢেপা নদীর বিভিন্ন এলাকার মধ্যে অধিকাংশ এলাকা জুরে নদীর বুকে বোরো ধান সহ অন্য ফসল ফলিয়েছে। চলতি আমন মৌসুমে নদীর বুকে ধান চষসাবাদ হয়েছে। অথচ এক সময় এ নদী ছিল নৌকা একমাত্র এই এলাকার যোগাযোগ ব্যাবস্থার অন্যতম মাধ্যম। নদী ছিল যৌবন জোয়ারে পরিপূর্ণ। নদীতে চলত পাল তোলা নৌকা। দুর থেকে ভেসে আসত মাঝি মাল্লার গানের সুরের মূছনা। এখন নদীর জোয়ারের সেই কল কল শব্দ ঝর ঝগরা করে নেমে আসা সেই ঝরনা এখন শুধুই সৃতি হয়ে দারিয়েছে।
নদী বাংলাদেশের প্রান, এখন সেই নদী নিষ্প্রান। এখন শুধুই একটি মার খাল। জলবায়ু পরিবর্তন আর প্রাকিতিক বিরুপ প্রভাবেনদীকে নিয়ে যত ছন্দ, কবিতা গান সব কিছুতেই যেন কলম থেমে যাচ্ছে। মানুষের প্রেম ভালবাসা নিরব ছায়াতলে হৃদয়ের মাঝে নানা আঁকে। স্বপ্ন জাগে কল্পনা আর স্মৃতির মহাবনে ভেসে বেড়াতে। তখন সুখ-দুঃখ আবেগ অনুভুতি যেন রিদ কে নান ভাবে দোলা দেয়। আবেগময় রিদয়ে স্বপ্ন কথা শুতনো নদীর সাথে তুলনা করেন কবি। কবির সাহিত্য বা কবিতায় ছন্দ কথা নিয়ে গীটারের ঝংকারে শিল্পির গানে সুরে সুরে মানুষের মনকে ব্যাকুল করে তোলে এমন একটি গান আমার একটি নদী ছিল জানলো না তো কেউ….। বীরগঞ্জের বুক উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সেই খরস্রোতা ঢেপা নদী শুধুমাত্র বর্ষাকালে কয়েক দিনের জন্য ফুটে উঠে নদীর চিত্র। এখন নদীর তলায় চাষাবাদ হচ্ছে ধান, ভূট্টা, বেগুন, আলু মরিচ, রশুন আদা সহ অন্য ফসল। ঢেপা নদীর বর্তমান গতিপথ কুল কিনারা দেখে উপজেলার সচেতন মহলের ধারনা আগামী ২০-৩০ বছরে পূর্বের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মানুষ কবির কাব্য কথার মতই হয়তো মনে করবে এইখানে একটি নদী ছিল।

আপনার মন্তব্য লিখুন