দিনাজপুরে জেঁকে বসেছে শীত ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে থাকায় শীতবস্ত্র কিনতে পারছেনা গরীব শ্রেণীর মানুষেরা

Share This
Tags

newsbdn
সিদ্দিক হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর সদরসহ জেলার সকল উপজেলাগুলোতে জেঁকে বসেছে শীত । বাড়ছে লেপ-তোষক ও শীত বস্ত্রের দোকান গুলোতে উপচে পড়া ভিড়।প্রচন্ড শীতের কারণে সন্ধ্যার পর শহর জনশূন্য হয়ে পড়ছে। সকাল ও সন্ধ্যায় কোন কোন বাড়িতে আগুনের কুন্ড জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কেউবা কাঁথামূড়িয়ে থর থর করে কাঁপছে। শীত বৃদ্ধি পাওয়ায় হতদরিদ্র মানুষরা আতঙ্কিত ও চরম দুর্ভোগে রয়েছে। প্রচন্ড শীত পড়লেও সরকারি ভাবে শীত বস্ত্র বিতরনের কোন উদ্যোগ নেই। শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে কম্বল থেকে শুরু করে সকল শীত বস্ত্রের চাহিদা বেড়ে গেছে দ্বিগুন তাই শীতবস্ত্রের দোকান গুলোতে দেখা দিয়েছে প্রচন্ড ভিড়। ধনি ও মধ্য শ্রেণীর মানুষেরা শীত বস্ত্র ক্রয় করতে পারলেও গরীব শ্রেণীর মানুষদের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। এবার শীত বস্ত্রের দাম গত বছরের তুলনায় অনেক বেশী হওয়ায় গরীব শ্রেণীর মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। এরই মধ্যে শীতের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে শীত বস্ত্রের দামও। দিনাজপুর শহরের রিক্সা চালক আবেদ আলী জানান, এবার শীতের কাপড়ের খুব দাম তাই আমাদের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। পরিবার-পরিজনদের নিয়ে শীতে কষ্ট করতে হচ্ছে। সরকারি ভাবে আমাদের শীত বস্ত্র দেওয়ার কোন ধরনের উদ্যোগ নেই। তাই খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে হচেছ। প্রচন্ড শীতের কারনে সন্ধার পর আর রিক্সা চালাতে পারিনা। সারাদিন রিক্সা চালিয়ে যে অর্থ উপার্যন করি তা খেতেই চলে যায়। এর মধ্যে শীত বস্ত্র ক্রয় করা সম্ভব না। এদিকে দিনাজপুর হকার্স মার্কেটের শীত বস্ত্র ব্যবসায়ী কাওসার জানান, এবার বেশী দামে শীতের কাপড় পাইকারদের কাছ থেকে কিনতে হয়েছে আর একারনেই এবছর শীতের কাপড়ের দাম বেশী। এই প্রচন্ড শীতে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছে হত দরিদ্র সাধারন মানুষ।

আপনার মন্তব্য লিখুন