দিনাজপুরে শহরের উত্তরা সুপার মার্কেটে দোকান দখলকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে এক নারী গুরুত্বর আহত

Share This
Tags

dinajpur-foto-1

সিদ্দিক হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর শহরের উত্তরা সুপার মার্কেটে দোকান দখলকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নাজমা বেগম নামে এক নারী গুরুত্বর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাঁর অবস্থা আশংকাজনক বলে চিকিৎসকগণ জানিয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত নাজমা বেগম জানান, উত্তরা সুপার মার্কেটের ৮৫নং দোকান শতরূপা ফ্যাশানের স্বত্বাধিকারী দেলোয়ার হোসেন মারা যাওয়ায় উত্তাধিকার সুত্রে পাওয়া দেলোয়ারের স্ত্রী নাজমা বেগম ও পুত্র নাঈম কর্মচারী সাকিবকে সাথে নিয়ে দোকানটির দখল বুঝে নিতে গত ৫ জানুয়ারী দোকানে যান। এ সময় নাজমা বেগমের সাথে দোকানের পজিশনের কাগজপত্র ছিল। তিনি দোকানে গিয়ে দোকানের সাটারিং ও দেয়াল ধোয়ামোছা ও রং করতে গেলে আকষ্মিক মৃত দেলোয়ারের ছোট ভাই আওলাদ ও জনৈক মামুন নাজমাকে দোকানে হাত দিতে নিষেধ করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। নাজমা তার কাগজপত্র দেখিয়ে তাদেরকেও কাগজ দেখাতে বলে। কিন্তু তারা তা দেখাতে ব্যর্থ হয়ে লাঠি-সোটা নিয়ে নাজমা উপর হামলে পড়ে। এ সময় মোটরসাইকেলযোগে মামুন ঢালী, ছুটুসহ তিনজন এসে নাজমাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। সন্ত্রাসী কায়দায় তারা একযোগে নাজমার মাথাসহ সারা শরীরে আঘাত করে। মর্মান্তিক এ দৃশ্য দেখে হত বিহবল পুত্র নাঈম দ্রুত তাঁর মাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা নাঈমকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে নাজমার পেটে স্বজোরে কিল, ঘুষি ও লাথি দিলে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। অবস্থা নাগালের বাইরে দেখে হামলাকারীরা দ্রুত সটকে পড়ে। পরে নাঈম ও স্থানীয়রা নাজমাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। চিকিৎসকগণ নাজমার অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন। তবে সিটি স্ক্যানসহ সব ধরনের পরীক্ষা-নিরিক্ষার মাধ্যমে তার চিকিৎসা চলছে বলে নাজমার পরিবার সুত্র জানায়।
এ ব্যাপারে নাজমার উপর হামলাকারী আওলাদ দাবী করেন, আমরা নাজমার উপর হামলা করিনি। বরং নাজমা ও তাঁর সহযোগীরাই আমাদের উপর হামলা করেছে। আমার ভাই দেলোয়ারের কাছ থেকে আমি পূর্বেই দোকানটি ক্রয় করেছি। ক্রয়সুত্রে স্বাভাবিকভাবে দোকানটি আমাদের। অন্যায়ভাবে তার স্ত্রী-সন্তানেরা এটি দাবী করছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন