লালমনিরহাটের ৫বছরের ছাত্রকে যাবজ্জীবন সাজা মওকুফ করতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট পিতার আকুল আবেদন

Share This
Tags

lalmonirhat1

ওয়ালিউর রহমান রাজু,লালমনিরহাট প্রতিবেদক: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় নাবালক ছেলের সাজা মওকুফ করতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট এক অসহায় পিতা আকুল আবেদন করেছেন। প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরিত লিখিত আবেদনে জানা গেছে,হাতীবান্ধা উপজেলার টংভাঙ্গা গ্রামের মৃতঃ হুজুর মামুদের পুত্র আব্বাছ আলীর সাথে তার বিমাতা ভাই জবর উদ্দিনের জমা-জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ চলে আসছিল।এ ছাড়াও তার বিমাতা ভাই জবর উদ্দিন একজন চোর।১৯৯৮ সালে উক্ত জবর উদ্দিন পাশ্ববর্তী ৩ কৃষকের বাড়ী থেকে রাতে বস্তাভরা ধান চুরি করে নিয়ে যায়।বিষয়টি ক্ষতিগ্রস্তরা টংভাঙ্গা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের তৎকালিন ইউপি সদস্য কছিম উদ্দিনকে বিচার দিলে সে চৌকিদার দিয়ে উক্ত জবরকে আটক করে স্থানীয় মাদরাসার মাঠে নিয়ে আসে।উপস্থিত জনগন ও ইউপি সদস্য জবরের চুরি করার বিষয়টি উক্ত আব্বাছ আলীর উপর বিচারের ভার ন্যস্ত করলে সে তাকে শাসন করার পর জবর চুরি করা ধান বের করে দেয়।এতে সে আব্বাছের উপর চরম ক্ষুব্দ হয়। এ কারনে জবর আব্বাছ ও তার পরিবারের ক্ষতি করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। এরই জের ধরে জবর তার ৫ বছরের মেয়েকে দিয়ে আব্বাছের ১১ বছরের ছেলের মজিদের বিরুদ্ধে১৭/৪/৯৮ইং তারিখে হাতীবান্ধা থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং৪৮/৯৮ এবং ওই মামলায় তারা নিজেরাই স্বাক্ষী হয় বলে আবেদনে তিনি উল্লেখ করেছেন।সে সময় আঃ মজিদ ৫ম শ্রেণির ছাত্র ছিল বলে জানা গেছে। উক্ত মামলায় বিজ্ঞ আদালত তার নাবালক ছেলে আঃ মজিদকে যাবজ্জীবন কারা দন্ডের নির্দেশ প্রদান করেন।এদিকে মেয়েটিকে ডাক্তারী পরীক্ষায় ধর্ষনের কোন আলামত পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান। তখন থেকে মজিদ প্রায় ১৬ বছর ধরে লালমনিরহাট জেলা কারাগারে কারা ভোগ করে আসছে।আনছার সদস্য এই আব্বাছ আলী নিজেকে দেশ ও জনগনের সেবা করে আসলেও উচ্চ আদালতে আপিল করে ছেলেকে মুক্ত করে আনার সামর্থ না থাকায় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করে গতকাল সোববার তিনি একটি লিখিত আবেদন করেছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন