Published On: বৃহস্পতি, জানু ২৬, ২০১৭

বাংলাদেশে আর ঝুঁকি নেই: জাপানি রাষ্ট্রদূত

Share This
Tags

বাংলাদেশে আর ঝুঁকি নেই: জাপানি রাষ্ট্রদূত

ঢাকা: গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার পর বাংলাদেশে জাপানি নাগরিকদের নিরাপত্তায় নেয়া উদ্যোগে সন্তুষ্ট দেশটির রাষ্ট্রদূত। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ নিয়ে তাদের আর কোনো উদ্বেগ নেই।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন জাপানি রাষ্ট্রদূত মাসাতো ওয়াতানাবি। বেলা ১২টার দিকে তিনি বাণিজ্যমন্ত্রীর দপ্তরে ঢোকেন। সেখানে আধা ঘণ্টা বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার পথ সাংবাদিকদের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেন।

জাপানি রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘হলি আর্টিজানের পর পুলিশ এবং বাংলাদেশ সরকার যেভাবে জাপানি ব্যবসায়ী ও নাগরিকদের নিরাপত্তায় পদক্ষেপ নিয়েছে সেটি প্রসংশার দাবিদার। এখন আর কোনো ব্যবসায়িক ঝুঁকি নেই বাংলাদেশে।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই আর্টিজান হামলায় যে ১৭ জন বিদেশিকে হত্যা করা হয়েছিল তাদের মধ্যে সাতজনই জাপানের। তারা আবার রাজধানীতে মেট্রোরেল প্রকল্পে পরামর্শক হিসেবে কাজ করতে বাংলাদেশে এসেছিলেন।

এই হামলার পর মেট্রোরেল প্রকল্পে জাপানি সহায়তা অব্যাহত থাকবে কি না, এ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা তৈরি হয়। তবে এই হামলার আট দিন পর জাপানি সহায়তা সংস্থা জাইকার প্রেসিডেন্ট শিনিচি কিতোকা এক বিবৃতিতে নিরাপত্তাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে তাদের সহায়তা অব্যাহত রাখার কথা জানান। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অবদান রাখার ব্যাপারে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

এই হামলার পর ছয় মাসে বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে জানিয়ে জাপানি রাষ্ট্রদূত তার দেশের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে আরও বেশি পরিমাণে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, ‘জাপানে বাংলাদেশ এক বিলিয়ন ডলার বাণিজ্য করছে। আর জাপান বাংলাদেশে বাণিজ্য করছে ১.৬ বিলিয়ন ডলার। আর দ্বিপাক্ষিত বাণিজ্য এখন ২.৫ বিলিয়ন ডলার। এর পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে।’

জাপান দুইটি পণ্য- অস্ত্র এবং লেদার হ্যান্ড গ্লবস ছাড়া সকল পণ্যের কোটা সুবিধা দিয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এটি আমাদের জন্য ইতিবাচক দিক। আমাদের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলেও বিনিয়োগ করছে জাপান। বাংলাদেশ এখন বিশ্বের যেকোন দেশের চেয়ে ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য ভাল দেশ।’

আপনার মন্তব্য লিখুন