এরশাদের ভাগ্যে কী আছে-আপিলের রায় বৃহস্পতিবার!

Share This
Tags

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট:

www.newsbdn.com

মামলা হয়েছে ১৯৯১ সালের ০৮ জানুয়ারি। অভিযোগ এক কোটি ৯০ লাখ ৮১ হাজার ৫৬৫ টাকার আর্থিক অনিয়মের। এ মামলায়  ১৯৯২ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালত সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেন। একইসঙ্গে ওই অর্থ ও একটি টয়োটা ল্যান্ডক্রুজার গাড়ি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন এরশাদ। এরপর কেটে যায় দীর্ঘদিন। ২০১২ সালের ২৬ জুন সাজার রায়ের বিরুদ্ধে এরশাদের আপিলে পক্ষভুক্ত হয় মামলার বাদী দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওইদিন আপিলে পক্ষভুক্ত হতে দুদকের আবেদন মঞ্জুর করেন বিচারপতি খোন্দকার মুসা খালেদ ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের অবকাশকালীন হাইকোর্ট বেঞ্চ।

এরপর কেটে যায় আরও কয়েক বছর।

গত বছরের ২২ আগস্ট এ মামলায় আপিল শুনানির দিন ধার্যের আবেদন জানায় দুদক। আবেদনটি কয়েক দফা কার্যতালিকায় এলেও মামলার নথি না আসায় শুনানি শুরু হয়নি।পরে গত বছরের ০১ নভেম্বর শুনানির দিন ১৫ নভেম্বর নির্ধারণ করেছিলেন আদালত। ওইদিন এরশাদের আইনজীবীর আবেদনের প্রেক্ষিতে আরও দুই সপ্তাহ সময় দিয়ে ৩০ নভেম্বর শুনানির দিন ধার্য করেন।

৩০ নভেম্বর শুরু হয় এ মামলার আপিল শুনানি। আদালতে এরশাদের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

গত ০৯ মার্চ উভয়পক্ষের আপিল শুনানি শেষে ২৩ মার্চ রায়ের দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট।বৃহস্পতিবারের (২৩ মার্চ) কার্যতালিকায় বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুসের একক বেঞ্চে সাড়ে তিনটায় রায়ের জন্য এক নম্বর ক্রমিকে রাখা হয়েছে।

১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ০৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি থাকাকালে বিভিন্ন উপহার রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা না দেওয়ার অভিযোগ ওঠে এরশাদের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগে ১৯৯১ সালের ০৮ জানুয়ারি তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরোর উপ-পরিচালক সালেহ উদ্দিন আহমেদ সেনানিবাস থানায় মামলাটি করেন। মামলায় এক কোটি ৯০ লাখ ৮১ হাজার ৫৬৫ টাকা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন