Published On: বুধ, মার্চ ২৯, ২০১৭

লালমনিরহাটে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলার আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে, পুলিশ নীরব

Share This
Tags

lalmonirhat1

ওয়ালিউর রহমান রাজু ,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: সেই যুবক আশিকুর রহমান ডিফেন্সের বিরুদ্ধে আরও একটি তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।জেলা প্রেস ক্লাবের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন বাবু বাদী হয়ে ২জনকে আসামী করে বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে গত ১৫ মার্চ এ মামলা দায়ের করেন। কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলার আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জানাযায়, জেলা প্রেসক্লাব লালমনিরহাট এর সভাপতি ওয়ালিউর রহমান রাজু ও সাধারণ সম্পাদক এবং দপ্তর সম্পাদক সুমন ইসলামসহ ৫জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে আশিকুর রহমান ডিফেন্স নামের এক যুবক আপত্তিকর ভাষায় ষ্ট্যার্টাস দেয়। অপরদিকে অপর মামলার বাদী ওয়ালিউর রহমান রাজু জেলা প্রেসক্লাব লালমনিরহাটের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন এবং দীর্ঘ ২০/২৫ বছর ধরে অত্যান্ত সুনাম ও নিষ্টার সাথে সাংবাদিকতা করে আসছেন। উক্ত ডিফেন্স জেলাপ্রেস ক্লাবের একাউন্ডে রাখা টাকা ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে আসছে সভাপতির নিকট। তার দাবীকৃত টাকা দিতে অস্বীকার করলে সভাপতিকে নানা ধরনের হুমকি স্বরুপ কথাবার্তা বলতে থাকেন। এমতাবস্থায় ঘটনার দিন ও ক্ষনে মামলার বাদী ওয়ালিউর রহমান রাজু ও প্রেসক্লাবেরকোষাধ্যক্ষ বাবলু মিয়াসহ মিশন মোড় অগ্রণী ব্যাংক শাখায় ৫ হাজার টাকা জমা দিতে গেলে পথি মধ্যে এন্না ফার্মেসীর সামনে পৌছা মাত্র আসামী আশিকুর রহমান ডিফেন্স পূর্বের আক্রোশে তাদের গতিরোধ করে জনসম্মুখে বাদীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ পূর্বক বাদীর পকেটে থাকা ৫ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য উক্ত ডিফেন্স একটি কুচক্রি মহলের সহযোগিতায় বাদীর বিরুদ্ধে উল্টো সদর থানায় জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সম্পাদকসহ ৫জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।এ ঘটনায় জেলার সাংবাদিক মহলের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।উল্লেখ্য, উক্ত ডিফেন্স এর বয়স যখন ৫/৬ বছর তখন থেকে সাংবাদিক ওয়ালিউর রহমান সাংবাদিকতা শুরু করেন।এ ব্যাপারে সদর থনার অফিসার ইনর্চাজ রফিকুল ইসলাম বলেন, মামলার অভিযোগের কপিপেয়েছি, তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। অপরদিকে উক্ত ডিফেন্স কতিপয় সাংবাদিকের নিকট থেকে প্রতারণা করে সাক্ষর গ্রহন পূর্বক আপত্তিকর ভাষায় কিছু অবাস্তব লেখা তার নিজস্ব আইডিতে জেলা প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে আপলোড করে। যা তথ্য প্রযুক্তি আইনের বিধিবর্হিভুত বলে জানা গেছে। এ কারণে জেলা প্রেস ক্লাবের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন বাবু বাদী হয়ে উক্ত আলোচিত ডিফেন্সসহ ২ জনের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে আরও একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বিজ্ঞ আদালত আমলে নিয়ে এজাহার হিসেবে গণ্যকরার জন্য সদর থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন। প্রেক্ষিতে সদর থানা গত ২১ মার্চ আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করেন। কিন্তু মামলা দায়েরের এক সপ্তাহ অতিবাহিত হওয়ার পরেও পুলিশ আসামীদেরকে গ্রেফতার করছে না। উপরোন্ত আসামীরা শহরে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং মামলা প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য জেলা প্রেস ক্লাবকে চাপ প্রয়োগ করছে। এব্যাপারে সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, মামলা রেকর্ড হয়েছে তদন্ত শেষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। মামলার আইও এসআই আব্দুল কুদ্দুস বলেন, আসামীদের গ্রেফতার করার জন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন